শিরোনাম :
লামাকাজীতে বাস-লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ঔষধি গাছ রোপনের বিকল্প নেই-অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক সিলেটে বজ্রসহ বৃষ্টি অব্যাহত-আবহাওয়া অফিসের সর্তকতা বিশ্বায়নের যুগে কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই: প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী ঈদুল আযহা উপলক্ষে জাফলং পর্যটন কেন্দ্রের সার্বিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ে বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত সিলেট নগরীতে তিনঘণ্টার বৃষ্টিতে ফের জলাবদ্ধতা এমসি কলেজে তাহিরপুর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের কমিটি গঠন হবিগঞ্জে অটোরিকশাকে ট্রেনের ধাক্কা, নারী নিহত সিলেটে বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস পালন সিলেটে সংবাদ সম্মেলন-জন্মবধির ও মারাত্মক বধিরদের চিকিৎসায় আলোকবর্তিকা ‘কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট’

শান্তির দূত হয়ে এসেছেন ড.জাফর ইকবাল স্যার, বাঁচালেন শিক্ষার্থীদের

রিপোর্টার নামঃ
  • বুধবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৮২ বার পড়া হয়েছে

অজয় বৈদ্য অন্তর:: যেনো শান্তির দূত হয়ে এসেছেন ড.জাফর ইকবাল স্যার। ২৮ শিক্ষার্থী মরনাপন্ন অবস্থায় ছিলো দীর্ঘ ১৬৩ ঘণ্টা অনশনে। কিন্তু শাবির বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল ও তাঁর স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হক শিক্ষার্থীদের বাঁচাতে যেনো শান্তি দূত হয়ে গমন করলেন।

অবেশেষে ১৬৩ ঘণ্টা পর ‘আমরণ অনশন’ ভাঙলেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৮ শিক্ষার্থী। আন্দোলনের ১৩ তম ও অনশনের ৮ম দিনে বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল ১০টা ২০ মিনিটের সময় বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল ও তাঁর স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হক শিক্ষার্থীদের পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙান। তবে অনশন ভাঙলেও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

এই করোনাকালীন বিপর্যয়ে এতবড় ঝড়ের পার্দুভাব থেকে শেষ রক্ষা পাওয়া কঠিন। এ সময়ে বাচ্চারা না খেয়ে থাকলে অসুস্থ হয়ে পড়বে। অনেক তো অসুস্থ হয়েই পড়েছে ইতিমধ্যে। বিশেষ করে ধন্যবাদ দিতেই হয় ড.জাফর একবাল স্যার কে। যার অমায়িক ব্যবহারে অনশনে থাকা বাচ্চাগুলো আর মুখ ফেরাতে পারে নি। সত্যি অন্য রকম ভালো লাগলো। খুব অস্বস্থির মধ্যে কেটেছিলো এ কটা দিন। বাচ্চারা না খেয়ে , না ঘুমিয়ে রাত দিন মৃত্যুর প্রহর গুনছিলো।

বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল স্যারের বিচক্ষণতার তারিফ করতেই হয়। দেশের এতো এতো এমপি মন্ত্রী অনশন ভাঙ্গার বৃথা চেষ্টা করলেন। অথচ অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল স্যার এসে ম্যাজিকের মতো কেমন সব সমস্যা সমাধান করে ফেললেন।

এর আগে বুধবার ভোরে শিক্ষার্থীরা জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে এলেই অধ্যাপক জাফর ইকবালের উপস্থিতিতে সকালে একযোগে অনশন ভাঙবেন তারা। তার আগে জাফর ইকবাল ও তার স্ত্রী ইয়াসমিন হকের সঙ্গে আলোচনার সময় এই প্রতিশ্রুতি দেন ক্যাম্পাসে অনশনরত শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাত ৩টা ৫৫ মিনিটে ঢাকা থেকে ক্যাম্পাসে আসেন শাবির সাবেক অধ্যাপক জাফর ইকবাল ও তার স্ত্রী (সাবেক অধ্যাপক) ইয়াসমিন হক।

আন্দোলনত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার সময় জাফর ইকবাল জানান, উচ্চ পর্যায়ে তার আলোচনা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে দাবি পূরণের প্রতিশ্রুতি পেয়েছেন। এ কারণেই তিনি ক্যাম্পাসে ছুটে এসেছেন। অনশন না ভাঙিয়ে তিনি ফিরে যাবেন না।

এখন ঘরের ছেলেরা ঘরে চলে যাচ্ছে দেখে ভালো লাগছে। জাফর ইকবাল স্যারের শিক্ষকতা জীবনের স্বার্থকতা এটাই। যারা ব্যর্থ হয়েছিলেন অনশন ভাঙ্গাতে তাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে জাফর ইকবাল স্যার বুঝিয়ে দিয়েছেন। সব কাজ জোর আদায় করা যায় না ভালোবাসা দিয়ে আদায় করতে হয়। বুধবার আজ (২৬ জানুয়ারি) সকাল ৭টা ৫০ মিনিটের সময় ক্যাম্পাসে অনশনের জন্য গড়ে তোলা মঞ্চ ও শামিয়ানা ভেঙে দেন তারা। তাদের সব সরঞ্জামাদি নিয়ে বাড়ির পথ ধরলেন আন্দোলনকারী অনশনরত শিক্ষার্থীরা।

আরো সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved © 2021 Anushondhan News
Developed by Host for Domain