শিরোনাম :
তাহিরপুরে পানি কমছে বেড়েছে দূর্ভোগ মধ্যনগরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে এমপি রনজিত সরকার কয়েস লোদীর নেতৃত্বে জৈন্তাপুর দরবস্তে বন্যাদুর্গত মানুষের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ সরকারের পাশাপাশি বন্যার্তদের পাশে সকলকে দাঁড়ানোর আহবান প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরীর vগ্রাসরুটস ও সামাজিক আন্দোলন সিলেট জেলার শুকনো খাবার বিতরণ সামর্থ্যের সবটুকু দিয়েও বিএনপি বন্যাপীড়িত দূর্দশাগ্রস্ত মানুষের পাশে রয়েছে–মিফতাহ্ সিদ্দিকী নগর বাঁচাও, সিলেট বাঁচাও স্লোগানকে সামনে রেখে বর্তমান ও সাবেক মেয়রের ছড়া পরিদর্শন বন্যাদুর্গত এলাকায় বানভাসিদের পাশে আনসার ও ভিডিপি ছাত্রলীগ নেতা তোফায়েল আহমদ’র পক্ষ থেকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ নগরীর তেররতনে জেলা ওয়াকার্স পার্টির শুকনো খাবার বিতরণ

সিলেটে যেমন কাটলো বানভাসিদের ঈদ

রিপোর্টার নামঃ
  • সোমবার, ১১ জুলাই, ২০২২
  • ১১৪ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক :: ‘একমাস হয়ে যাচ্ছে ঘরে ফিরতে পারছি না। কত কষ্ট করেছি জীবনে তবে এরকম মহাকষ্টে কখনও পড়িনি। এই প্রথম কোরবানির ঈদে মাংস খেতে পারছি!’ কথাগুলো বলতে বলতে কখন যে রহিমা বেগমের চোখ দিয়ে পানি ঝড়তে শুরু করেছে তা খেয়ালই নেই তার। হঠাৎ কণ্ঠস্বরও নিচু হয়ে গেল। আর যেন কথাই বলতে পারছেন না তিনি। এ তো গেল রহিমার কথা।

সত্তর বছর বয়সী সায়েরা বেগম এগিয়ে এসে জানালেন, তিন সপ্তাহের বেশী সময় ধরে গোসল, ঘুম, খাওয়া দাওয়া কিছুই যেন ঠিকঠাক হচ্ছে না তার। পরিবারের সাত সদস্য নিয়ে জীবন বাঁচানোর সংগ্রাম আর চলছে না।

রহিমা-সায়েরা এই দুই নারীর সঙ্গে রবিবার বিকেলে কথা হয় সিলেট রেল স্টেশনে। সেখানে তারা খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন। শুধু এই দুই নারীই নন এরকম অন্তত ২৫ টির অধিক পরিবার বন্যার কারনে আশ্রয় নিয়েছে রেল স্টেশনের বারান্দায়।

আশ্রয় নেওয়া পরিবারের সদস্যরা জানান তারা সবাই সিলেট নগরীর মোমিনকলা এলাকার বিভিন্ন কলোনীর বাসিন্দা। সিলেট-সুনামগঞ্জের ভয়াল বন্যায় তাদের ঘরে পানি উঠেছে। নগরীর সব এলাকার পানি নেমে গেলেও এখন পর্যন্ত তাদের ঘর জলমগ্ন। তাই নিরুপায় হয়েই রেল স্টেশনে বসবাস করছেন। বর্তমানে তাদের দুবেলা খাবার বিতরণ করছে রেল স্টেশনের ফাঁড়ি পুলিশ। ত্রান সহায়তাও আসছে না তেমন।

ঈদ প্রসঙ্গ তুলতেই অন্ধ স্বামী আর তিন সন্তান নিয়ে চরম অসহায়ত্বের কথা প্রকাশ করেন সুফিয়া বেগম। বলেন, বাবা- আমাদের ঈদ নেই। রাত হলেই বাতাস – বৃষ্টির জন্য ঘুমাতে পারিনা। দিনে মানুষ আর টেনের শব্দ। এভাবে কি বাঁচা সম্ভব?

সুফিয়া বলেন, আমার স্বামী অন্ধ মানুষ। তিন সন্তান নিয়ে কিভাবে আছি কেউ খবর নেয় না। অন্যান ঈদে তো সাহায্য পেতাম এবার তাও পাচ্ছি না। ঘরে এখনও হাটু পানি। কবে ফিরমু তার নিশ্চয়তা নাই। আমরা গরীব মানুষ। আমরার ঈদ আছে নি। যাও অন্যান্য বছর করতাম এবার তো বন্যায় আমাদের ঈদ আনন্দ হারিয়ে গেছে।

সরকারি হিসেবে সিলেটে চলমান বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৬০ লাখ মানুষ। আর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে অন্তত ৮০ হাজার ঘরবাড়ি। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ তহবিল থেকে ঘরবাড়ি হারানো ১০ হাজার পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে প্রদান করা হচ্ছে। তবে বেশিরভাগই এখনও ভাঙা ঘর মেরামত করতে পারেননি। এছাড়া পানি নামায় এখনও আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ।

ফলে এবার লক্ষাধিক মানুষের ঈদ কাটছে আশ্রয়কেন্দ্রে বা অন্যত্র আশ্রিত হয়ে। অনেকের ভাঙা ঘরে।

বর্তমানে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ, কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগরসহ ৭টি উপজেলার অনেক জায়গা এখনো বন্যা কবলিত রয়েছে। কয়েক দিন পানি কিছুটা কমেছে। নদীর তীরবর্তী এলাকা এখনও ডুবে রয়েছে। রাস্তাঘাট ও বসতবাড়ি পানিতে নিমজ্জিত।

আরো সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved © 2021 Anushondhan News
Developed by Host for Domain